পুজোর মরশুমে সুখবর, এবার এনজিপি-দার্জিলিং টয় ট্রেনেও মিলবে ভিস্তা-ডোম পরিষেবা

 

বিবিধ ডট ইন: এনজেপি-দার্জিলিং টয় ট্রেন পরিষেবা শুরু হয়েছিল আগেই, এবার পুজোর মরশুমে নয়া চমক দিতে টয়টেনে যোগ করা হলো ভিস্তা-ডোম। অতএব এবার থেকে ভিস্তা-ডোমে বসেই শ্বেতশুভ্র কাঞ্চনজঙ্ঘা, চা বাগান, তিস্তা নদী, মহানন্দা অভয়ারণ্য, পাহাড়ি ঝরনা দেখা যাবে। সেই সঙ্গে থাকছে রেস্তোরাঁ কোচও। অর্থাৎ খাদ্যরসিকদেরও যে পোয়াবারো তা বলাই যায়।

সোমবার থেকেই চালু হয়েছে এই পরিষেবা। এনজেপি স্টেশন থেকেই ছাড়বে এই ট্রেন। সোমবার এনজেপি স্টেশনে সবুজ পতাকা দেখিয়ে এই ট্রেনের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের জেনারেল ম্যানেজার অনুসূল গুপ্তা। উপস্থিত ছিলেন বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তও।

এই ভিস্তাডোম টয়ট্রেন কোচ ১৫ আসন বিশিষ্ট। আরামদায়ক উচ্চমানের আসনের সঙ্গে থাকছে বড় বড় কাঁছের জানলাও। এ ছাড়াও থাকছে ৮ আসনের সম্পূর্ণ বাতানুকূল কোচ। ভিস্তা ডোমের অন্যান্য কোচের মতো এটিতেও বড়ো বড়ো কাচের জানলাা ও ছাদ থাকছে। ফলে সহজেই এই ট্রেনটি পর্যকটকদের আকর্ষণ কাড়বে বলে আশবাদী রেলকর্তারা।

এই ভিস্তাডোম কোচের যাত্রীভাড়া ১৫০০ টাকা। এ ছাড়াও রেস্টুরেন্ট কোচে বসার জন্য অতিরিক্ত ১৩০০ টাকা ব্যয় করতে হবে। এনজেপি স্টেশন থেকে প্রতি সপ্তাহের শনিবার, সোমবার ও বুধবার ছাড়বে। আর দার্জিলিং স্টেশন থেকে রবিবার, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার ছাড়বে।

গত কয়েক মাস ধরে যেভাবে তিনধরিয়া ও রংটংয়ের মাঝে ধস নামছে, তা কিছুটা চিন্তায় রেখেছে। গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে দু-দফায় ধসের জেরে বন্ধ ছিল এনজেপি-দার্জিলিং টয় ট্রেন পরিষেবা। অবশেষে ধস সরিয়ে মহালয়ার পরদিনই চালু হল ভিস্তা ডোম টয় ট্রেন পরিষেবা।

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: