জিভে প্রেম: আনলক রেসিপি— গোলকধাঁধা চিকেন

এখনই শেয়ার করুন

 

লকডাউন, কোভিড পরিস্থিতি, আমফানের মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয়, প্রতিনিয়ত মৃত্যুর খবর… সব খারাপেও খাদ্যরসিক বাঙালির মন ভাল রাখার একমাত্র টোটকা ‘পেটপুজো’। সুকুমার রায় তো সেই কতকাল আগেই বলে গেছেন… (জিভে প্রেম: আনলক রেসিপি— গোলকধাঁধা চিকেন)

যতকিছু খাওয়া লেখে বাঙালির ভাষাতে,

জড়ো করে আনি সব— থাক সেই আশাতে

 

— সেই আশাতেই লকডাউনের অবকাশে নিত্যনতুন এক্সপেরিমেন্ট। সেই গবেষণার ফসল বলতে পারে। তবে এই গবেষণা রসনাতৃপ্তি সম্পূর্ণ করল কি না, আপনারাই বিচার করুন।

আরও পড়ুন: বসু বিজ্ঞান মন্দির থেকে নারীশিক্ষায় ভূমিকা, ‘জগদীশচন্দ্রের স্ত্রী’ই থেকে গেলেন অবলা

উপকরণ

যেহেতু খাদ্যরসিক, তাই ভাল রান্নাকে শিল্প ও রাঁধুনিকে ভ্যানগগ্ বা ভিঞ্চি আখ্যা দিতে দ্বিধাবোধ করি না। তাই আজকের ক্যানভাসে যে যে রং ব্যবহার হবে, তার একটা বর্ণনা:

১. মুরগির মাংস পরিমাণমতো (পেস্ট)
২. রসুন বাটা ১ চা চামচ
৩. কাঁচা লঙ্কা বাটা ১ টেবিল চামচ
৪. গোলমরিচ গুঁড়ো ১/২ চা চামচ
৫. একটি কাঁচা ডিমের সাদা অংশ
৬. নুন (পরিমাণ মতো)
৭. লাল লঙ্কার গুঁড়ো (ঝাল বুঝে)
৮. কাশ্মীরি লঙ্কার গুঁড়ো ১ চা চামচ
৯. পেঁয়াজবাটা ২ টেবিল চামচ
১০. সাদা তেল
১১. টক দই

 

প্রণালী

আজকের টি-টোয়েন্টির যুগেও আমার মতো অনেকেই আছেন, যাঁরা টেস্ট ক্রিকেট দেখেন শুধুমাত্র ১০ ওভার অপেক্ষা করে একটা ক্লাসিক স্ট্রেটড্রাইভ দেখবেন বলে। চোখ ও মন, উভয়েরই শান্তি। সত্যিকারের ক্লাসপ্লেয়ার ও ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে এখনো টেস্ট ক্রিকেট স্বর্গ। কারণ একজন ক্রিকেটারের বেসিক জ্ঞান-ধৈর্য টেস্টেই উপলব্ধ, পরীক্ষিত ও উন্মোচিত হয়। তেমনই একটা রান্নার বেসিক পার্ট হচ্ছে প্রসেসিং মেথড। সেটা যদি সঠিক পদ্ধতিতে সম্পন্ন হয়, তাহলেই রান্না সুপারহিট! আর আজকের রান্নার প্রসেসিং নিতান্তই সামান্য। আশা রাখি, সবার কাছে খুব সহজেই তা গ্রহণযোগ্য হবে।
একটা পাত্রে পেস্ট করা চিকেন নিয়ে তার মধ্যে রসুন বাটা, কাঁচালঙ্কা বাটা, গোলমরিচ গুঁড়ো, পরিমাণমতো নুন এবং ডিমের সাদা অংশ দিয়ে ভাল করে মেখে নিতে হবে। ব্যাস! এইটুকুই।

আরও পড়ুন: দুধ পিঠের গাছ: এক স্বপ্নপূরণের গল্প

 

গ্রেভির জন্য:
তবে এই রান্না প্রসেসিংয়েই শেষ নয়। ক্যামিও হলেও গ্রেভির রোলটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ব্যাপারটা অনেকটা ব্যাটিং অর্ডারে লাস্টে নেমে হার্দিক পান্ডিয়ার ৮ বলে ২৪ রানের মতো। যাই হোক, গ্রেভির প্রসঙ্গে আসা যাক।
কড়াইতে পরিমাণমতো তেল দিয়ে পেঁয়াজ বাটা, কাঁচালঙ্কা বাটা এবং রসুন বাটা দিয়ে ভাজা ভাজা করে নিতে হবে। এবার একটা পাত্রে পরিমাণমতো টকদই, শুকনো লঙ্কার গুঁড়ো এবং কাশ্মীরি লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে তেলের মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। যখন মশলা থেকে তেল ছাড়তে শুরু করবে ঠিক সেইসময় চিকেনের পেস্ট থেকে পছন্দমত শেপ (shape) গড়ে গ্রেভিতে দিয়ে দিতে হবে, এবার স্বাদমতো নুন এবং পরিমাণমতো জল দিয়ে সিম আঁচে (low flame) ফুটতে দিতে হবে। নামানোর আগে গরম-মশলার গুঁড়ো এবং মাখন ছড়িয়ে পরিবেশন করতে হবে।

প্রিপারেশনটা পুরো রেডি করে একটা কথাই মনে হয়েছে। বাঙালির নিজস্ব কিছু কম্বোপ্যাক আছে। বিরিয়ানির সাথে চিকেন বা মটন চাপ, গরমভাতের সাথে কষামাংস, ফ্রায়েড রাইসের সাথে চিলিচিকেন… কিন্তু পোলাওয়ের সাথে? কী মশাই? আপনি ভাবছেন, আছে তো কাশ্মীরি আলুরদম। কিন্তু নিরামিষ ভুঁড়িভোজের উপর উপযুক্ত সম্মান রেখেই বলছি… পোলাওয়ের প্রতি এমন ‘ভেগানোচিত’ মনোভাব ত্যাগ করে একবার দেখুন না! কথা দিচ্ছি… গোলকধাঁধা চিকেন কাউকে হতাশ করবে না।

 

বিবিধ ডট ইনএর জিভে প্রেম কলামে আনলক রেসিপি— গোলকধাঁধা চিকেন লিখলেন অনিন্দিতা সুর।


এখনই শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *