ফিচার

নতুন নক্ষত্রের দিশারী পরিচালক তপন সিনহা

 

বিবিধ ডট ইন: কে জানত? বিদেশী কোম্পানীর ইন্টারভিউ ছেড়ে স্বরূপ দত্ত হয়ে উঠবেন ভবিষ্যতের ‘নেপথ্যে নায়ক?’
বাংলা সিনেমার সুর্বন যুগের কথা বলতে গেলে উজ্জ্বল নক্ষত্রের তালিকায় আমরা প্রথমেই যাদের স্মরণে রাখি তারা হলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা উওম ও সৌমিত্র। কিন্তু বাংলা সিনেমা জগতে নতুন নক্ষত্রের আবিষ্কার করেছিলেন পরিচালক তপন সিনহা। দুই নক্ষত্রের অন্তরালে লুকিয়ে থাকা উজ্জ্বল নক্ষত্র স্বরূপ দত্ত।

সালটা ছিল ১৯৬৮, সিনেমার নাম ‘আপনজন’। ১৯৬৭ সাল নাগাদ তাবড় তাবড় পরিচালকের পাশাপাশি তপন সিংহ ও অন্যতম একজন ছিলেন। তখন তিনি ‘আপনজন’-এর জন্য নতুন মুখের দিশায়। তখনই তিনি বেছে নিলেন তরুণ স্বরুপ দত্তকে। মুক্তি পাওয়ার সাথে সাথে দর্শকের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছিল এই তরুণ অভিনেতা। সিনেমার রবি আর বাস্তবের স্বরূপ তখন একে অপরকে গড়ে নিয়েছেন একটু একটু করে। সিনেমার শেষ দৃশ্যে যখন রবি পুলিশের হাতে ধরা পড়ল, তখন আপামর দর্শক আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছিল এক অদ্ভুত মায়া মেদুরতায়। যদিও তার হাতেখড়ি হয়েছিল
ছোটোবেলায় সাউথ পয়েন্ট হাই স্কুলে পড়ার সময়েই শিক্ষক হিসাবে পেয়েছিলেন উৎপল দত্তকে। তখনই শেক্সপিয়ারের নাটক দিয়ে অভিনয় শুরু। আর সেটা যে আজীবন সঙ্গে থেকে যাবে, তা হয়তো বুঝতে পেরেছিলেন স্বরূপ দত্ত। স্কুলের পর কলেজে এবং কলেজের বাইরেও নানা থিয়েটারে অভিনয় করেছেন। এমনকি অর্থনীতির ছাত্র স্বরূপ যখন কর্মসূত্রে ওড়িশার সম্বলপুরে, তখনও কাজের ফাঁকে বসে বসে পড়তেন বের্টল্ট ব্রেখটের নাটক নিয়ে। জার্মানির এই নাট্যকার স্বরূপের জীবনে আমূল বদল এনেছিলেন।

তাঁর আত্মপ্রকাশ কালে বাংলা চলচিত্রে একপ্রকার রাজ করছেন উত্তম,সৌমিত্রর মতন অভিনেতারা। তবু বাঙালি দর্শক তাঁকে দিব্যি নায়ক হিসেবে মেনে নিয়েছিলেন। এরপর সাগিনা মাহাতো-কে নিয়ে তপন বানালেন সিনেমা। এছাড়াও তিনি কাজ করেছেন অরুন্ধতী দেবী, অজয় কর, সরোজ দের মতন বর্ষীয়ান অভিনেতাদের সঙ্গে। একইসঙ্গে চালিয়ে গিয়েছেন থিয়েটারও। কলকাতার রঙ্গমঞ্চে জহর রায়ের ‘অনন্য’ নাটকে নায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেন তিনি। একদা উৎপল দত্তের পরিচালনায় অভিনয় করেছেন ‘ক্রুশবিদ্ধ কিউবা’ নাটকেও। ১৯৭৬ সালেই নায়ক থেকে ক্রমশ চরিত্রাভিনয়ে সরে আসেন স্বরুপ। সেই বছরেই মুক্তি পেয়েছিল তাঁর তিনটি সিনেমা। তপন সিংহের হারমোনিয়াম ইন্দর সেনের অর্জুন ও অসময়। হারমোনিয়াম সাফল্য পেলেও বাকি দুটি সিনেমা দর্শকদেরর মনে তেমন দাগ কাটতে পারেনি। ১৯৯৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘নয়নতারা’ তাঁর জীবনের শেষ সিনেমা।

সিনেমা জগতকে বিদায় জানানোর পর টিভির পর্দায় নিয়মিত ক্রিকেট ফুটবল দেখাই ছিল যেন তাঁর ধ্যান-জ্ঞান। ২০০৬ সালে প্রথম সেরিব্রাল স্টোকে আক্রান্ত হন তিনি। তবে সেবার বেঁচে গিয়েছিলেন চিকিৎসকদের তৎপরতায়। ২০১৯ সালের ১৩ জুলাই আবারও অসুস্থ হয়ে পড়লেন স্বরুপ। তবে এবার আর ফেরা হল না ৪ নং রুস্তমজি স্ট্রিটের বাড়িতে। ১৭ জুলাই ২০১৯, চলে গেলেন স্বরুপ দত্ত।

লিখেছেন প্রিয়াসা নন্দী

Leave a Comment
Share

Recent Posts

Subrata Mukherjee Death: প্রয়াত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়

বিবিধ ডট ইন: প্রয়াত রাজ্যের পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে দেখতে…

November 4, 2021

ঋত্বিককে ভরসা নেই! দেবব্রত বললেন, ‘না হইলে আমারে তুমি চাকর-বাকরের পার্ট দিয়া দিবা’

বিবিধ ডট ইন: একেবারে সোজা সাপটা বক্তব্য তাঁর, 'আমারে দিয়া যদি তুমি গান গাওয়াইতে চাও,…

November 4, 2021

‘ব্যর্থতা বা দুঃখ ঢাকতে নয়, মদ্যপানকে ঘৃণা করতেন,’ তবুও মদের দিকেই কেন ঝুঁকলেন ঋত্বিক?

  বিবিধ ডট ইন: যিনি নিজেই নিজেকে 'ভাঙা বুদ্ধিজীবী' অর্থাৎ 'Broken intellectual' বলতেন, সেই ঋত্বিক…

November 4, 2021

অজানা রোগে একাধিক শুয়োরের মৃত্যু, সোয়াইনফ্লু আতঙ্ক উত্তরবঙ্গে

  বিবিধ ডট ইন: অজানা রোগে একের পর এক শুয়োররের মৃত্যুতে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তরবঙ্গ জুড়ে।…

November 4, 2021

তৃণমূলের মিছিলে ‘না’, ১০০ দিনের কাজ থেকে বাদ পড়লেন ৪০ জন

  বিবিধ ডট ইন: শাসক দল তৃণমূলের ডাকা মিছিলে অংশগ্রহণ না করার অভিযোগে ১০০ দিনের…

November 4, 2021

কলকাতা থেকে জলপাইগুড়িতে ‘স্থানান্তরিত’ হল বুর্জ খালিফা!

  বিবিধ ডট ইন: গত দুর্গা পুজোয় শহর কলকাতার অন্যতম আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছিল শ্রীভূমি…

November 4, 2021

This website uses cookies.