পালে হাওয়া! গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক সংগঠনকে আশ্বাস কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর

এখনই শেয়ার করুন

বিবিধ ডট ইন কিছুটা হলেও বৃহত্তর গ্র্যাজুয়েট টিচার্স  অ্যাসোসিয়েশন-এর পালে হাওয়া মিলল। বেতন বৈষম্য TGT স্কেলের (Trained Graduate Teacher) দাবি নিয়ে বারবার সরব হতে দেখা গেছে এই শিক্ষক সংগঠনকে। সরকারের তরফে কোনও সুরাহা মেলেনি। (নেতাজিকে নিয়ে এই ষড়যন্ত্রের কথা শুনলে শিউরে উঠবেন)

অবশেষে আশ্বাস পেল খোদ কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রীর থেকে। তাঁর হাতে TGT স্কেল সংক্রান্ত দাবিপত্র তুলে দিলেন বিজিটিএ সংগঠনের শিক্ষকরা! (পালে হাওয়া! গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক সংগঠনকে আশ্বাস কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর)

১৯ ফেব্রুয়ারি  বিজেপি শিক্ষক সেলের পক্ষে ‘শিক্ষা বাঁচাও’ পথসভার আয়োজন করা হয়েছিল। গ্রাজুয়েট শিক্ষকদের টিজিটি স্কেলের দাবি সেখানে প্রধান ছিল। আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল বৃহত্তর গ্র্যাজুয়েট টিচার্স  অ্যাসোসিয়েশন-কে। সূত্রের খবর, প্রায় পাঁচহাজার গ্রাজুয়েট শিক্ষক বেতন বৈষম্যের প্রতিবাদে এদিন পথে নেমেছিলেন।

এর আগেও বহুবার তাঁরা রাস্তায় নেমে আন্দোলন করেছেন। সংশ্লিষ্ট দফতরে যোগাযোগ থেকে শুরু করে শিক্ষামন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীকে এই সমস্যার নিরসনের দাবি জানালেও কোনও সদুত্তর মেলেনি।

আরও পড়ুন: কয়লাকাণ্ডে বাড়িতে সিবিআই, কী প্রতিক্রিয়া অভিষেকের?

সংগঠনের তরফে আগাগোড়াই গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকরা যে দাবি জানিয়ে এসেছেন, তা হল গোটা ভারতবর্ষের নিরিখে একজন গ্রাজুয়েট ও পোস্ট-গ্রাজুয়েট শিক্ষকের মূল বেতনের পার্থক্য ২,৭০০ টাকা। কিন্তু এই রাজ্যে সেই পার্থক্য ৯,২০০ টাকা।

তাই অবিলম্বে এই পে-স্কেল সংশোধন করে বেতন সংক্রান্ত এই বৈষম্য নিরসন করতে হবে বলেই জানিয়ে এসেছে বিজিটিএ।

রাজ্য সরকারের তরফে এখনও পর্যন্ত কোনও সুরাহা না পাওয়া গেলেও কিছুটা হলেও স্বস্তিতে সংগঠন, এমনটাই মনে করা হচ্ছে। কারণ তাদের দাবি শুনে পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন খোদ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

সংবাদসূত্রে জানা গেছে, ১৯ ফেব্রুয়ারি কলকাতার নিউটাউনে আসেন কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল।

আরও পড়ুন:  UPSC-র মাধ্যমে নিয়োগ, বেতন দু’লক্ষের কাছাকাছি

সেদিন রাতেই বৃহত্তর গ্রাজুয়েট টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের রাজ্য সভাপতি ধ্রুবপদ ঘোষাল TGT স্কেলের দাবিপত্র কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য নিরসন প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন,

আমি এই বিষয়টি জানি। শিক্ষা যেহেতু যুগ্ম তালিকায়, আমরা এখানে হস্তক্ষেপ করতে পারব না। তবে আমরা ক্ষমতায় এলে নিশ্চিতভাবে এই সমস্যার সমাধান করা হবে।

শিক্ষক সংগঠন বিজিটিএ-এর রাজ্য সভাপতি ছাড়াও মন্ত্রীর হাতে দাবিপত্র তুলে দেওয়ার সময় এদিন উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের রাজ্য সহ-সভাপতি প্রতাপ মণ্ডল এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণার ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল।

আরও পড়ুন: অদম্য জেদ, নিজের খরচে শ’য়ে শ’য়ে তরুণীকে দিশা দেখাচ্ছেন এই স্কুলশিক্ষক


এখনই শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।