কার্ট কোবেন: রক্‌ সঙ্গীতের অভিমানী ঈশ্বর

এখনই শেয়ার করুন

বিবিধ ডট ইন: 20th February, 1967. Aberdeen, Washington D.C. আর পাঁচটা ছেলের মতোই বেড়ে ওঠাটা হতেই পারত, কিন্তু জীবনের প্রথম ধাক্কা আসে মাত্র ন’বছর বয়সে– বাবা-মায়ের divorce। ন’বছরের ছেলেটির মাথায় ঢুকছিলই না এসব। ছোট্ট Kurt-এর মন তখন থেকেই যেন সব বিষয়ে বিদ্রোহ আরম্ভ করে, পৃথিবীর সবাই-ই যেন তাঁর শত্রু। এরই মধ্যে মা-বাবার একাধিক সম্পর্ক, নিঃসঙ্গতা থেকেই বিষাদ আর গ্লানিতে জর্জরিত Kurt মাদকাসক্ত হন মাত্র 9 বছর বয়সে ও অপেক্ষা করতে থাকেন এই পৃথিবীতে নিজের মত বিচরণ করার । (কার্ট কোবেন: রক্‌ সঙ্গীতের অভিমানী ঈশ্বর)

প্রচলিত সমাজব্যবস্থা, ধ্যানধারণার বিরোধী Kurt এর সঙ্গী ছিল একমাত্র Martin Guitar। তাঁর সমস্ত যন্ত্রণা, পারিবারিক সমস্যা, প্রচলিত System-এর প্রতি তীব্র ঘৃণা, স্কুলের অত্যাচার, নিঃসঙ্গতা, রেললাইনে বসে আত্মহত্যার চেষ্টা, দুর্বিষহ যন্ত্রণা সবটাই তিনি উজাড় করে দিয়েছিলেন গানে, আর সেখান থেকেই জন্ম নেয় Rock Music-এর অন্যতম ধারা (genre) ‘𝙂𝙍𝙐𝙉𝙂𝙀’ — 90’s-এর music-এর পুরো চেহারা বদলে যায় এই 20 বছরের ছেলেটির আগমনে, তাঁর আলোতে ম্লান হয়ে যায় চারপাশের সব, রাতারাতি সবচেয়ে উজ্জ্বল তারকা কীভাবে হতে হয় তা তিনি দেখিয়েছিলেন গোটা বিশ্বকে। সারাজীবন যিনি নিজেকে আপাংক্তেয় ভেবে কষ্ট পেতেন, তিনি কি ভেবেছিলেন যে পুরো পৃথিবীর ভালোবাসায় সিক্ত হবেন তিনি, তাঁর মৃত্যুর পরেও, যুগের পর যুগ?

Foo Fighters, Faecal Matter হয়ে অবশেষে গঠিত হয় — ‘𝙉𝙄𝙍𝙑𝘼𝙉𝘼’ (তখন তিনি 20)। নামটি নেওয়া হয়েছিল বুদ্ধবাদ দ্বারা প্রভাবিত হয়ে ‘নির্বাণ’ বা মুক্তিলাভকে সামনে রেখে। তিনি চেয়েছিলেন যাবতীয় যন্ত্রণা, সুখ, দুঃখ,খ্যাতি, বস্তুবাদ থেকে মুক্তি। 2nd Album release হয় ‘NEVERMIND’।  বিক্রি হয় মোট 63 millions copy, এই album-এরই ‘Smells like teen spirit’ কাঁপাতে থাকে Billboard সদর্পে। রাতারাতি 21-এর Kurt Cobain হয়ে ওঠেন ‘Face of Generation’।

তাঁর গান কথা বলত এক ভিন্ন সমাজের, সমাজের অসংগতির প্রতি বিদ্রোহের। তিনি চাইতেন তরুণরা যেন সামনে এগিয়ে এসে সমাজ বদলায়, শুধু গা বাঁচিয়ে চলা না শেখে। আর সেসব তরুণের জন্য তিনি ছিলেন দৃপ্ত বলীয়ান কন্ঠ। Kurt Cobain বা Nirvana -র Lyrics খেয়াল করলে দেখা যায়, সেখানে বরাবরই দ্বন্দ্বাত্মক শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে। Cobain বিশ্বাস করতেন মানুষ মাত্রই দ্বান্দ্বিক।

তিনি তাঁর শেষ অনুষ্ঠান করেন 1993 সালের 18th November– 𝙈𝙏𝙑 𝙐𝙉𝙋𝙇𝙐𝙂𝙂𝙀𝘿 𝘼𝙏 𝙉𝙀𝙒 𝙔𝙊𝙍𝙆– এখনও অবধি বিশ্বের সবচেয়ে জমকালো Live Unplugged Show। এই show-এর stage-টি তাঁর অনুরোধে সাজানো হয় মৃত্যুর প্রতীক Lily ফুল দিয়ে। হয়তো এই সময় থেকেই তাঁর মধ্যে মৃত্যুচেতনা জেগে ওঠে। এই Show প্রসঙ্গে BBC,  Kurt Cobain সম্বন্ধে বলেছে,

তাঁর প্রজন্মের কাছে তিনি John Lennon-এর অনুরূপ এক আদর্শ। সম্পূর্ণ এক প্রজন্মের মুখপাত্র। যেন Lennon গাইছেন তাঁর মধ্যে থেকে, তবে Electric guitar দিয়ে।

এরই মধ্যে একদিকে তাঁর ব্যক্তিগত জীবনের চুলচেরা বিশ্লেষণ, অযাচিত খ্যাতি ও অন্যদিকে Courtney Love ও তাঁর কন্যা Francis Cobain-এর প্রতি তাঁর ভীষণ ভালোবাসা– এই দুইয়ের দ্বন্দ্বে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন তিনি, সাথে চলতে থাকে অতিরিক্ত মাত্রায় মাদক সেবন। তাঁর কন্যা Francis-কে অসম্ভব রকম ভালোবাসতেন তিনি, সে-ই ছিল Kurt-এর সব, তার জন্য Music-ও ছেড়ে দিতে রাজি ছিলেন তিনি। বাবা-মা, পরিবারের যে যত্ন তিনি নিজে ছোটোবেলায় পাননি, তা তিনি তাঁর কন্যাকে উজাড় করে দিয়েছিলেন। এরই সঙ্গে ছিল খামখেয়ালি Kurt এর মানসিক দ্বন্দ্ব– তিনি ভেবেছিলেন তিনি বেঁচে থাকলে হয়তো তাঁর কন্যাও ওঁর মতো কোনও Death Rocker-এ পরিণত হবে।

অবশেষে 1994 সালের 8th April। মাত্র 27 বছর বয়স, Seattle এর বাড়িতে মেলে তাঁর Shotgun-এ ছিন্নভিন্ন হয়ে যাওয়া মৃতদেহ। আত্মহত্যা নাকি Courtney Love-এর ষড়যন্ত্র? এসবকিছুর ঊর্ধ্বে Rock Music হারায় তাঁর ‘শ্রেষ্ঠ সন্তান’কে। মনে পড়ে যায় Kurt Cobain-এর Suicide note-এর সেই বিখ্যাত উক্তি,

It’s better to burn out than to fade away.

আবার Robert Hughes-এর কথায়,

যে শিল্পী যত বড় তাকে ঘিরে রহস্যও তত বেশি। সঠিকতা কম মেধাবীদের সান্ত্বনা পুরস্কার মাত্র।

প্রশ্ন জাগে, কী এমন ‘নির্বাণ’লাভের আশায় কোটি কোটি ভক্তকুলের ভালবাসাকে তুচ্ছ করে চলে যেতে বাঁধল না তাঁর? কিন্তু পরক্ষণেই মনে হয়, চিরজীবনটাই তো এমনই খামখেয়ালি, অভিমানী ছিলেন আমাদের Cobain!

𝙆𝙐𝙍𝙏 𝘾𝙊𝘽𝘼𝙄𝙉– ভালবাসার এই মানুষকে আমি চিনেছি তাঁর সেই অমর বাণী,

I would rather be hated for who I’m than loved for who I’m not.

-এর পরিপ্রেক্ষিতে। আমার ভালোবাসা খাপছাড়া প্রকৃতির। Cobain এর গান তো বটেই, সঙ্গে তাঁর খামখেয়ালিপূর্ণ আচরণ, কথাবার্তা আমাকে আবিষ্ট করেছে, সন্দেহ নেই। একটা অনিয়ন্ত্রিত জীবন, অনুভূতি জনিত অসমতার বিস্ফোরণ, মাত্র 27-এ আত্মহত্যা নাকি পরিকল্পিত কোনও হত্যাকাণ্ডের শিকার তা জানি না; ভালবাসি, এতটুকুই জানি।

 

কার্ট কোবেন: রক্‌ সঙ্গীতের অভিমানী ঈশ্বর লিখলেন শতানিক মণ্ডল।


এখনই শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।