উজ্জয়িনী-শমীকের বসন্ত-‘ট্রিপ’, ক্লাসিক্যাল ও র‍্যাপের অভিনব মেলবন্ধন

এখনই শেয়ার করুন

সায়ন্তন মণ্ডল: উপলক্ষ যখন দোল আর সেই দোল’কে কেন্দ্র করে বাঙালি গান বাঁধবে না তা কী হয়?  প্যান্ডেমিক পরবর্তী এবারের বসন্তে দোল উপলক্ষে প্রকাশিত হল সুমন মিকি চট্টোপাধ্যায় ও দেবাঙ্কন চক্রবর্তীর লেখা ও শমীক গুহ রায়ের অ্যারেঞ্জমেন্টে উজ্জয়িনী আর শমীক রায়চৌধুরীর নতুন গান ‘প্রেমের হোলি’। গানটির সুরও উজ্জয়িনীর। গানে ক্লাসিক্যাল ছোঁয়ার সাথে র‍্যাপের নতুন ধারার সংযোজন।

 

ইতিমধ্যে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে সাড়া ফেলেছে এই গান। এমনকী, এই গানের ছন্দে হুল্লোড় করে হোলি খেলার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে। উজ্জ্বয়িনীর নিজের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয়েছে এই গানটি। র‍্যাপের সাথে ক্ল্যাসিক্যালের মেলবন্ধনে এমন অভিনব ভাবনার পিছনে ঠিক কী কারণ?

সঙ্গে থাকুন। ফলো করুন আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ:

এ বিষয়ে উজ্জয়িনী জানালেন, ‘যেহেতু এই প্রজেক্টটা দুম করে করে ফেলা একটা কাজ। তাই ‘চল কিছু করে ফেলি’ গোছের ভাবনা নিয়েই করা এই গানটা। শমিক গুহ রায় যে এই গানটার মিক্সিং মাস্টারিং ইত্যাদি যাবতীয় কাজ করেছে। এবং শমীকই (গুহ রায়) আমার সাথে বাকিদের যোগাযোগ করিয়ে দিয়েছে।’

আর  চলচ্চিত্র নির্মাতা শমিক রায়চৌধুরী এই গানের র‍্যাপার জানালেন, ‘ শমীক গুহ রায় আর আমি ইতিমধ্যে ২টো অন্য গান রেকর্ড করে ফেলেছি। আমার আগামীতে প্রকাশিত হতে চলা ৬ টা গানের মধ্যে, আর তারই মাঝে ‘ প্রেমের হোলি গান টা করে ফেললাম। শমীক (গুহ রায়) আমায় জানায়, ‘উজ্জ্বয়িনী একটা গান গাইছে হোলির উপর যে গানটার মোটিভ শুধুমাত্র মানুষকে আনন্দ দেওয়া। তুমি কি গাইবে?’ তাছাড়া উজ্জয়িনীও শমিক(গুহ রায়) কে জিজ্ঞেস করেছিল যে শমীক (রায়চৌধুরী) যা ব্যস্ত, ও কি গাইবে ? আমি জানি না ও কেন এটা জিজ্ঞেস করেছে । কার আমি মনে করি আমার মতন একজনের কাছে এটা একটা বিরাট অপরচুনিটি।  আমি এক কথায় রাজি হয়ে যাই এবং ট্র্যাক টা পাবার ২ দিনের মধ্যে আমি লিখে ফেলি।’

কীভাবে তৈরি হলো এই গান? এই  প্রসঙ্গে উজ্জয়িনী জানালেন,

‘প্রথমে ঠিক হয় সুমন লিরিক্স লিখবে। সুরটা যখন আমি গুনগুন করছিলাম নিজের মনে, তখন প্রথম যে লাইনটা সাবলীলভাবে আমার মধ্যে এসেছিল ‘হায় হায়রে এ কী হোলি’ সেই লাইনটাকে সুমন একটুও ডিস্টার্ব করেনি। ঐ লাইনটাকেই অক্ষুণ্ণ রেখে পরবর্তী লাইন গুলো লেখা হয়। তারপর আমি সাজেস্ট করি একটা ক্লাসিক্যাল মুখড়া জাতীয় কিছু একটা করার জন্য। হিন্দিতে মুখড়াটা লিখেছে দেবাঙ্কন চক্রবর্তী। তারপর শমীক গুহ রায় আমায় বলে এই গানের মধ্যে একটা র‍্যাপ থাকলে কেমন হয়। এবং ও-ই শমীক রায়চৌধুরীর কথা আমায় বলে। আমিই প্রথমে বলি ‘ও কী করবে?’ কারণ ওর নানাবিধ এত কাজ। তখন আমি দেখলাম ২ দিনের মধ্যে শমিক(রায়চৌধুরী) একটা র‍্যাপ লিখে সেটা মোবাইলে রেকর্ড করে আমায় ম্যাসেজ করেছে।’

এভাবেই শুরু হয় ‘প্রেমের হোলি’। যে গানে ইতিমধ্যেই ‘ট্রিপ’ নিয়েছে বহু শ্রোতা।

অন্যদিকে শমীক ডুও-র পরবর্তী গানগুলি শিগগিরই আসছে বলেই বিবিধ ডট ইন-কে জানিয়েছেন শমীক রায়চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আগেই বলেছি আমার আগামী ৬ টা গানের মধ্যে ২ টো গান আমি অলরেডি শমীক গুহ রায়ের সাথে করে ফেলেছি। ও আমার দীর্ঘদিনের বন্ধু। তাই এই গানটা আমার কাছে একটা রিইউনিয়নের মতন।’

র‍্যাপ বলতে শ্রোতারা মনের মধ্যে যে ধারণা পোষেন, সেখান থেকে বেরিয়ে অন্যরকম কিছু করতে চেয়েছেন শমীক। ‘প্রেমের হোলি’ গানটিতে তার প্রতিফলনও দেখা যায়। কিন্তু এর আগে কি র‍্যাপ করেছেন শমিক রায়চৌধুরী? প্রশ্নের উত্তরে তিনি বললেন,

‘আমি গান গাইতাম। তিনটে সিনেমার জন্য গান কম্পোজ-ও করেছি। তার মধ্যে একটা আমার নিজের সিনেমা ‘ ডি-মেজর’। আর বাকি দুটো ‘আমি আর জয় চ্যাটার্জি’ এবং ‘তৃতীয় অধ্যায়’৷ কিন্তু আমার র‍্যাপ করার আগাম কোনো প্ল্যানিং ছিল না৷ আমার লাইফে অনেক টানাপোড়েন গেছে। জীবনে প্রচুর কথা জমে আছে। এই লকডাউনে যেহেতু সব কাজকর্ম বন্ধ ছিল  সেহেতু ভবিষ্যতের কাজের প্রস্তুতি নেওয়া আরম্ভ করেছিলাম। আমি ফিল করি আমার অনেক কিছু বলার আছে৷ তাই কবিতা লেখা শুরু করলাম। আমি দুটো কবিতা লিখলাম। একটা পাঠ করলেন মৌলিকা ও একটা পাঠ করলেন কঙ্কনা। মিউজিক দিয়ে, গল্পের মতন করে কবিতা দুটো তুলে ধরার চেষ্টা করেছিলাম স্ক্রিনে। কিন্তু দুটোতেই সাফল্য আসেনি সেভাবে। এরপর ভাবলাম সোজা কথা যদি সোজাসুজি বলি আমি, তাহলে কিভাবে বলবো?। তখন হঠাৎ খেয়াল হলো র‍্যাপ করি একটা!’

তিনি আরও বললেন, ‘মনে আছে লকডাউন শুরুর আগের দিকে আমার ভেতর বিভিন্ন কারণে একটা সুইসাইডের প্রবণতা বেড়ে গিয়েছিল। সেটা হয়তো আমার সিনেমা দেখে অনেকে বুঝতে পারে। আমার ভেতরকার চাপা যন্ত্রণা থেকেই এই টেন্ডেন্সি। ওই মুহূর্তটা নিয়েই একটা কবিতা লিখি। এবং সেটা নিজের মতন নিজের ভঙ্গিতে বলে বন্ধু শিবাশিস ব্যানার্জির কাছে পাঠাই। শিবাশিস ট্র্যাক তৈরি করে। গিটারে যোগ দেয় চয়ন। মোবাইলেই শ্যুট আর এডিট করি এবং রূপসাদির (দাশগুপ্ত) একান্ত সহায়তায় রূপমদার (ইসলাম) চ্যানেলে প্রকাশিত হয় গান টা। গানটা অনেক মানুষের কাছে পৌঁছেছিল। আমার কোভিড হওয়াকালীন সময়, আমায় আমার সদ্যোজাত মেয়ের থেকে দূরে আইসোলেশানে থাকতে হয়েছিল বেশ কিছুদিন। সেই সময় ‘মনের কথা’ নামের একটা র‍্যাপ লিখি। এবং এটাই ফুল ফেজড র‍্যাপ। এই গানটা মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে আমি গানটা পার্সোনালি সবাইকে শেয়ার করি এবং আমার পরিচিতরা যে যার মতন করে আপলোড করে গানটা। এই গানটাও বেশ সাড়া ফেলেছিল৷’

প্রসঙ্গ যখন প্রেমের হোলি, কেমন লাগল কাজ করে?  উজ্জয়িনী জানালেন,

‘যেহেতু শমীক (রায়চৌধুরী) আমার বহুদিনের পরিচিত, কিন্তু আগে কাজ করা হয়নি, সেহেতু রিইউনিয়নের মতন গানটা করে খুব ভালো লাগছে৷ ভিডিও শ্যুটেও খুব আনন্দ হয়েছে। প্রেমের হোলি গানের পুরো প্রসেসটার মধ্যে যে আনন্দ সেই আনন্দটুকুই ভাগ করে নিতে চেয়েছি আমরা সক্কলের সাথে। দেখলাম এই গানটা চালিয়ে বেশ কিছু মানুষ এবারে দোল খেলেছেন। ভিডিও টা দেখে মনে হল এই উচ্ছ্বাসটার জন্যই গানটা বানানো।’

একদিকে হোলি বলতে যে ‘ট্রিপ’-এর কথা বলা হয়েছে গানে, কিংবা গোটা গানের কথায় এবং ভিডিওতে যে আনন্দ-উচ্ছ্বাস দেখা গেছে, তাতে ‘প্রেমের হোলি’ যে সফল, একথা বলা বাহুল্য। পাশাপাশি ‘বাংলায় র‍্যাপ হয় না’, প্রচলিত এই ভাবনার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে শমীক যে যন্ত্রণার কথা, মনের কথা তুলে ধরছেন নিজস্ব ছন্দে, তাও যে সফল, একথা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর ‘প্রেমের হোলি’ নিয়ে বলতে গেলে, পুরো টিম যেভাবে কাজ করেছে, তারাও বা কম কীসে! সব মিলিয়ে উজ্জয়িনীর ‘পাওয়ার-প্যাকড’ কণ্ঠ এবং শমীকের র‍্যাপ মন ছুঁয়েছে সঙ্গীতপ্রেমীদের।

দেখুন ‘প্রেমের হোলি’র মিউজিক ভিডিও


এখনই শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *