মাত্র ১ টাকায় মিলবে চিকিৎসা পরিষেবা, মানবিক উদ্যোগ এই ডাক্তারের

এখনই শেয়ার করুন

বিবিধ ডট ইন: নিঃসন্দেহে এটি একটি মহৎ ও সৎ প্ৰচেষ্টা। উড়িষ্যার সম্বলপুর জেলার এক চিকিৎসক চালু করেছেন ‘ওয়ান রুপি ক্লিনিক’ (One Rupee Clinic)। অর্থাৎ এক টাকার বিনিময়ে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার জন্যই এই উদ্যোগ। মূলত আর্থিক দিক থেকে পিছিয়ে পড়া মানুষদের জন্যই এই মানবিক উদ্যোগ নিয়েছেন শঙ্কর রামচন্দনি। (মাত্র ১ টাকায় মিলবে চিকিৎসা পরিষেবা, মানবিক উদ্যোগ এই ডাক্তারের)

বুরলা অঞ্চলের বীর সুরেন্দ্র সাই ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল অ্যান্ড রিসার্চের সহকারী অধ্যাপক শঙ্কর রামচান্দানি বুরলা অঞ্চলেই একটি ক্লিনিকের স্থাপনা করেছেন, যেখানে এক টাকা মূল্যের বিনিময়ে চিকিৎসা করানো যাবে।

রামচন্দনি একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন যে, এই উদ্যোগ তাঁর বহুদিনের একটি স্বপ্নের ফলশ্রুতি। তিনি আরও বলেন,

আমি সুরেন্দ্র সাই ইনস্টিটিউট জয়েন করি সিনিয়র রেসিডেন্ট হিসেবে। সিনিয়র রেসিডেন্টদের প্রাইভেটে প্র্যাকটিস করার অনুমতি ছিল না। এখন আমি সহকারী প্রফেসর, তাই আমি এখন নিজের ব্যক্তিগত ক্লিনিক খুলতে পেরেছি।

এক টাকার বিনিময়েই কেন চিকিৎসা পরিষেবা দেন দিন? নির্ধারিত ‘এক টাকা’ মূল্যের কি কোনও বিশেষ তাৎপর্য আছে? সেই প্রসঙ্গে খো চিকিৎসক বলেন,

আমি সাধারণ মানুষকে এটা বোঝাতে চাইনি যে, এটি একটি বিনেপয়সার চিকিৎসা পরিষেবা কেন্দ্র। বরং এরকম ভাবুক যে টাকার বিনিময়েই চিকিৎসা নিচ্ছে তারা।

এই ক্লিনিক বুরলা অঞ্চলের কাছা বাজারে খোলা হয়েছে। যেখানে মানুষ সকালে ৭টা থেকে ৮টা এবং সন্ধ্যায় ৬টা থেকে ৭টা পরিষেবা পাবে।

মাত্র ১ টাকায় মিলবে চিকিৎসা পরিষেবা, মানবিক উদ্যোগ এই ডাক্তারের

সমাজে এমন বহু মানুষ আছেন, যাঁদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পরিষেবাটুকু নেওয়ার সামর্থ্য নেই। তাঁদের প্রসঙ্গে রামচন্দনি অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলেন যে, যাদের বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর সামর্থ্য নেই তারা ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে ডাক্তারকে দেখান। তাদের নিজেদের সমস্যা বিস্তারিত ভাবে বলারও সময় থাকে না সরকারি হাসপাতালে। তাদের জন্যই এই বিকল্প ব্যবস্থা। এক টাকার বিনিময়ে তারা অনায়াসেই চিকিৎসা করাতে পারেন।

রামচান্দানি বাবুর স্ত্রী শিখা রামচান্দানি যিনি পেশায় একজন দন্ত চিকিৎসক, তিনিও এই উদ্যোগে স্বামীর পাশে দাঁড়িয়েছেন।

চলতি বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে এই ক্লিনিক চালু হয়েছে। সূত্রের খবর, প্রথমদিনই ৩৩জন রোগী এসেছেন এই চিকিৎসা কেন্দ্রে।

প্রাথমিকভাবে রামচন্দনিবাবুর ইচ্ছে ছিল একটি নার্সিংহোম খোলার। কিন্তু নার্সিংহোমের জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থের বিনিয়োগ দরকার। তাই তিনি এই ক্লিনিক শুরু করেছেন।

শঙ্কর রামচন্দনি প্রথমবার খবরের শিরোনামে আসেন ২০১৯ সালে,যখন তিনি একজন কুষ্ঠরোগীকে নিজে বাড়ি পৌঁছে দিয়ে আসেন। তাঁর এই মানবিকতা নেটিজেনদেরও প্রশংসা কুড়িয়েছিল। গতবছর কোভিডের সময়েও তিনি নিজের ডিউটি আওয়ারের পরেও বহু মানুষের চিকিৎসার জন্য খবরের শিরোনামে এসেছেন।

লিখলেন সোহম হাটুয়া


এখনই শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *