স্টেশনের বাইরে একসময় ফল বেচতেন, ৮৫ লক্ষ টাকার অক্সিজেন দিলেন ব্যবসায়ী

বিবিধ ডট ইন: চার ভাইবোন মিলে নাগপুর রেল স্টেশনের বাইরে ১৯৯৫ সাল থেকে কমলা লেবু বিক্রি করতেন নাগপুরের আজবাগ বস্তিতে বেড়ে ওঠা প্যারে খান।

দেশজোড়া ক্রমবর্ধমান করোনা পরিস্থিতিতে ইতিমধ্যে ৪০০ মেট্রিকটন লিকুইড অক্সিজেন নাগপুর এবং নাগপুর সংলগ্ন অঞ্চলের একাধিক হাসপাতালে পাঠিয়েছেন তিনি। এই কাজের জন্য ইতিমধ্যে ব্যয় করেছেন ৮৫ লক্ষ টাকা।

সেদিনের সেই কমলালেবু বিক্রেতা প্যারের বড় হবার গল্পটাও কম রঙীন নয়। ১৮ বছর বয়সে গাড়ি চালানো শেখার পর কমলালেবু বিক্রির পাশাপাশি একটি কুরিয়ার সংস্থায় কাজ নেন তিনি। কিন্তু ঊড়িশ্যায় একটি দুর্ঘটনার পর কাজ হারান প্যারে। এর পর অটো চালানোর সাথে সাথে নাগপুর মেলোডি মেকার্স নামক একটি ব্যান্ডে কি-বোর্ড বাজাতে শুরু করেন তিনি।

২০০৪ সালে ২৪ বছর বয়সী প্যারে ব্যাঙ্ক থেকে ১১ লক্ষ টাকা ঋণ নিয়ে একটি ট্রাক কেনেন। মাত্র ২ বছরের মধ্যেই ব্যাঙ্কের ঋণ শোধ করে দেন তিনি। বর্তমানে ১২৫ টি ট্রাকের মালিক প্যারে খান জানান,

ছোট থেকে ভীষণ অভাবের মধ্যে বেড়ে উঠেছি আমরা। পড়াশোনা করার সুযোগ পাইনি টাকার অভাবে। আজ যখন আমার কাছে টাকা আছে, এই সংকটের পরিস্থিতিতে যদি মানুষের পাশে না দাঁড়াতে পারি নিজেকে ক্ষমা করতে পারবো না কোনদিন।

বর্তমানে আসমি রোড ট্রান্সপোর্ট প্রাইভেট লিমিটেড নামক একটি কোম্পানির মালিক তিনি। দেশের ১০ টি শহরে তাদের অফিস আছে এবং প্রায় ৫০০ কর্মী কাজ করে এই সংস্থায়।

 

লিখেছেন সায়ন্তন মন্ডল 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *