সঙ্কট, লকডাউন, পরিযায়ী শ্রমিক এবং… ‘মড়কের গান’ আসলে সালতামামি

বিবিধ ডট ইন: অভিশপ্ত ২০২০? অনেকেই বলছেন। হঠাৎ করেই যেন সব নিয়ম পাল্টে গেছে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে। কোভিড পরিস্থিতির ঠেলায় নিউ নরমালে অভ্যস্ত হচ্ছেন সবাই। অভ্যস্ত হচ্ছেন শিল্পীরাও, তাঁরা ধীরে ধীরে কনসার্টকে ডিজিটালাইজ্ড করেছেন। যার ফলে বাড়ি বসেই দর্শকরা দেখে নিচ্ছেন তাঁদের প্রিয় শিল্পীদের অনুষ্ঠান। (সঙ্কট, লকডাউন, পরিযায়ী শ্রমিক এবং… ‘মড়কের গান’ আসলে সালতামামি)

কিন্তু এমন কোনও ডিজিটাল কনসার্ট, যেখানে শুধুমাত্র এই সঙ্কটজনক পরিস্থিতি, লকডাউনের গল্পগুলো একটা সূত্রে বাঁধা থাকবে— এইরকম ভাবনা অভিনব। আগামী ১৩ ডিসেম্বর, রাত ৮টা থেকে বিশিষ্ট গীতিকার, সঙ্গীতশিল্পী আকাশ চক্রবর্তী অরেঞ্জ প্রোডাকশন-এর সহায়তায় ডিজিটাল কনসার্ট করছেন, যার নাম ‘মড়কের গান’। শিল্পী জানিয়েছেন, ‘এই অনুষ্ঠানে মূলত ভারতবর্ষের। বিগত লকডাউনের মধ্যে এবং লকডাউন পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন মানুষের দুঃখ, কষ্ট, অর্থাভাব, লোকক্ষয় নিয়ে তৈরি হওয়া গল্প, গান আড্ডার ছলে ভাগ করে নেবেন তাঁর দর্শকশ্রোতা বন্ধুদের সঙ্গে।’

আকাশ বহুদিন ধরেই বাংলা মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে লিরিসিস্ট হিসেবে কাজ করে চলেছেন। বহু সিনেমা এবং বিজ্ঞাপনের গান তৈরি করেছেন। পাশাপাশি লিখে গেছেন নিজের জন্য অনেক গান, যেগুলি বাংলা ইন্ডিপেন্ডেন্ট গানের ধারায় যুক্ত হয়েছে। কিন্তু নিজের লেখা ইন্ডিপেন্ডেন্ট কাজগুলি খুব অল্প পরিসরেই প্রকাশ করেছেন তিনি, কোনওরকম আড়ম্বর ছাড়াই। কিন্তু তাও তাঁর লিরিক্স-এর ক্ষিপ্রতায় তাঁর গান চর্চিত হয়েছে বহু জায়গায়, প্রশংসা কুড়িয়ে নিয়েছে বহু গুণী ব্যক্তিদের থেকেও। এমনকী, নেট দুনিয়ায় নেটিজেনদের মধ্যে ভাইরাল পর্যন্ত হয়েছে তাঁর গান কিংবা লিরিক্স। অবশেষে এই প্রথমবার তিনি একা দর্শকদের সামনে তাঁর গানের ডালা সাজিয়ে বসছেন কোনও অনুষ্ঠানে।

আকাশ বলছেন, ‘২০১৯ এর শেষে আমি নিজেকে কথা দিই যে, আমার চারপাশে ঘটে চলা সব ঘটনা, যেগুলো আমায় ভেতর থেকে খুব ভাবিয়ে তুলবে সেইগুলো নিয়ে গান লিখব। ঘটনাচক্রে ২০২০ সালে কোভিড-১৯ ভাইরাস আসে এবং পরিস্থিতির ব্যাপক বদল হয়। অনেক ঘটনা আমায় কষ্ট দেয়, আবার আনন্দও দেয়। যখন দেখেছি পরিযায়ী শ্রমিকরা হেঁটে বাড়ি ফিরছে, তাঁদের দেখে কষ্ট পেয়েছি। আবার কিছু মানুষ মিলে যখন অসহায়, দরিদ্রের জন্য কমিউনিটি কিচেন খুলেছে, আমি আনন্দ পেয়েছি। এই অনুভূতিগুলো দিয়েই এক একটা গান লিখে গেছি। পরে যখন সবকটা গান সাজিয়ে দেখি তখন লক্ষ্য করি যে গানগুলি পরপর রাখলে এই বছরের একটা গল্প পাওয়া যাচ্ছে। সেই ভাবনা থেকেই এবং পুরোনো কিছু গানের আশ্রয় নিয়ে ঠিক করি একটা কনসার্ট করব। তাই ‘মড়কের গান’।’ তাঁর অনুষ্ঠান নিয়ে বাংলা গানের বিভিন্ন শ্রোতা, দর্শকদের মধ্যে উচ্ছ্বাস দেখা দিচ্ছে। একটি গোটা বছরের গল্প তুলে ধরা হবে একটা কনসার্টে, এইরকম ঘটনা হয়নি। তাই আকাশ কীভাবে অনুষ্ঠান সাজাবেন, সেটা জানার কৌতূহল ক্রমশই বাড়ছে।

টিকিট কাটতে ক্লিক করুন

সঙ্কট, লকডাউন, পরিযায়ী শ্রমিক এবং… ‘মড়কের গান’ আসলে সালতামামি
কন্ট্রিবিউটর: অরিঘ্ন মিত্র

আরও পড়ুন:

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: