নীলবাতি ব্যবহার করা যাবে না মন্ত্রীদের গাড়িতেও: মমতা

 

বিবিধ ডট ইন: যখন রেলমন্ত্রী ছিলেন, তখন যেমন, মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরেও নিরাপত্তার আড়ম্বর প্রদর্শন তাঁর নাপসন্দ। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ মহলের খবর, যখন যে-পদেই থাকুন, তাঁকে ঘিরে পুলিসি নিরাপত্তার বাড়াবাড়ি, রাস্তা খালি করে দেওয়া, তাঁর কনভয়কে আগে এগিয়ে দেওয়া ইত্যাদি পছন্দ করেননি তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর পদে বসার দিন থেকেই মমতা এই ধরনের বিষয় এড়িয়ে চলেছেন। এমনকি তিনি সরকারি গাড়িতে চড়েন না এবং গাড়ির মাথায় লাল-নীল বাতিও ব্যবহার করেন না। মমতার কনভয়ের পুলিসের গাড়িগুলিও যায় তাঁর গাড়ির পিছনে। খুব অনিবার্য কোনও কারণ বা প্রয়োজন ছাড়া তিনি সামনে কোনও পাইলট কার নেন না।

নিজের মন্ত্রিসভার সহকর্মীদেরও তিনি এই বিষয়গুলি বর্জন করতে বলেছেন বলে মমতার ঘনিষ্ঠ মহলের দাবি। বৃহস্পতিবার নবান্ন সভাঘরে কলকাতা পুলিসের পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে সে-কথারই পুনরাবৃত্তি করেন মমতা। এ দিনের অনুষ্ঠানে আইএএস, আইপিএস, ডব্লিউবিসিএস অফিসারদের সঙ্গে ডব্লিউবিপিএস-এর বৈষম্য রদেরও বার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী।

পুলিসকর্মীদের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী এ দিন বলেন, ‘আমি মিনিস্টারদের বলেছি, গাড়িতে লাল-নীল আলো লাগাবেন না। পুলিসেরও যাঁরা আছেন, আপনারা যখন রাস্তা দিয়ে যান, হুড়হুড় করে ১৭-১৮ মিনিটে গাড়ি চালিয়ে চলে যান। এটায় কিন্তু বদনাম হয়। আমি নিজে ট্র্যাফিকে দাঁড়াতে খুব পছন্দ করি। যদি অন্য গাড়ি আটকানো হয়, আমার সঙ্গে যাঁরা থাকেন, আমি সারা ক্ষণ ওঁদের বকাবকি করি যে, কেন আটকেছে গাড়ি। আমি এক দিক দিয়ে যাব, ওরা আর এক দিক দিয়ে যাবে। রাস্তা যত সচল থাকবে, তত ভাল থাকবে।’ তাঁর অভিযোগ, যাঁরা খুব বেশি গতিতে গাড়ি নিয়ে যান, মানুষ তাঁদের পছন্দ করে না। অনেক সময়ে তাঁদের যাওয়ার রাস্তা অন্যদের জন্য বন্ধ রাখা হয়। এ ভাবে রাস্তা ব্লক করা চলবে না বলেও এ দিন স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন মমতা।

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: