ছোট ছেলের ক্যানসারের চিকিৎসায় সাহায্য করতে চেয়েছিলেন অক্ষয় কুমার! বছরকয়েক আগের স্মৃতি তুলে ধরলেন ইমরান হাসমি

 

কয়েক বছর আগের সেই যন্ত্রণাময় দিনগুলির কথা নিজের বইতে তুলে ধরেছেন বলিউড অভিনেতা ইমরান হাশমি। চার বছরের ছোট্ট ছেলের ক্যান্সার ধরা পড়ে। এরপর শুরু হয় লড়াই। ইমরান হাশমি জানিয়েছেন কঠিন লড়াইয়ের দিনগুলিতে তার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন অভিনেতা অক্ষয় কুমার।

দ‍্য কিস অফ লাইফ- হাউ এ সুপার হিরো অ্যান্ড মাই সন ডিফিটেড ক্যান্সার নামক বইটিতে ক‍্যানস্যারের সঙ্গে তার ছেলে আয়ান এবং তার পরিবারের লড়াইয়ের বিষয়টি তুলে ধরেছেন তিনি। বইটির মুখপত্র লিখেছেন অক্ষয় কুমার

ছেলের চিকিৎসা চলাকালীন অক্ষয় কুমারের ফোন পান বলে জানান ইমরান হাশমি। সন্তানের অসুস্থতার বিষয়টি সত্যি কিনা তা জানতে তাঁকে ফোন করেছিলেন অক্ষয় কুমার। ইমরান হাসমি সে সময় ফোনে জানান অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ছেলের টিউমার এবং কিডনি বাদ দেওয়া হয়েছে। সেই সময় হাসপাতালে যেতে চান অক্ষয় কুমার। উন্নত চিকিৎসা পরিষেবা এবং চিকিৎসকের সঙ্গে তার যোগাযোগ রয়েছে বলেও ইমরান হাশমিকে জানিয়েছিলেন তিনি। সেই সাথে যেকোনো ধরণের প্রয়োজনে তার পাশে থাকার আশ্বাস দেন খিলাড়ি অক্ষয় কুমার।

অক্ষয়ের এই ভূমিকায় আপ্লুত ইমরান হাশমি। ইমরান হাশমির ছেলের নিত‍্যদিন খোঁজখবর নেওয়ার পাশাপাশি তার ছেলেকে দেখতেও অক্ষয় কুমার গিয়েছিলেন বলে জানান তিনি। ক্যান্সারের কারণে নিজের বাবাকে হারিয়ে ছিলেন অক্ষয় কুমার। তাই এই পরিস্থিতিতে ইমরান হাসমির মনের অবস্থা উপলব্ধি করতে পারেন তিনি। কানাডায় নিজের পরিচিত হাসপাতালে ইমরান হাশমির ছেলের জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিতে চেয়েছিলেন তিনি।

নিজের অনুভূতির কথা ইমরান হাসমির বইয়ে লিখেছেন অক্ষয় কুমার। তিনি লিখেছেন, ‘আয়ানের পরিস্থিতির কথা যখন শুনলাম, মনে হল যেন কেউ আমার পেটেই এসে ঘুষি মারল। গাড়ি চালাচ্ছিলাম। তৎক্ষণাৎ গাড়ি থামিয়ে ইমরানকে ফোন করি। কারণ, আমি জানি নিজের কাছের মানুষ এই রোগের শিকার হলে ঠিক কেমন লাগে।

ইমরান হাসমির আগামী ছবির নাম ‘সেলফি’। এই ছবিতে অক্ষয় কুমারের সঙ্গে দেখা যাবে তাঁকে। ছবিতে মুখ্য চরিত্রে রয়েছেন নুসরত ভারুচা এবং ডায়না পেন্টি‌। ২০১৯-এর মালয়ালম ছবি ‘ড্রাইভিং লাইসেন্স’-এর হিন্দি রিমেক এই ছবি।

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: