ক্রমশ পিছোচ্ছে মানুষের ইতিহাস— রয় (প্রথম পর্ব)

এখনই শেয়ার করুন

শব্দবাজ‘ নাকি রেডিও জকি? একসময় কলকাতার জনপ্রিয় রেডিয়োতে আরজে ছিলেন। এখন প্রাক্তন। তবে ‘শব্দবাজি’ কিন্তু থেমে নেই। রয়। প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ে তাঁর বিশেষ আগ্রহ। বিবিধ ডট ইন-এর ব্লগ বিভাগে ক্রমশ পিছোচ্ছে মানুষের ইতিহাস লিখলেন ‘শব্দবাজ’ রয়। (ক্রমশ পিছোচ্ছে মানুষের ইতিহাস — রয়)

ক্রমশ পিছোচ্ছে মানুষের ইতিহাস

প্রথম পর্ব

 

মানুষের বয়স কত? আর, ‘মানুষ’ হিসেবে কাকেই বা ধরব— হোমো সেপিয়েন্স, নাকি তার আগেও কিছু ছিল?

বেশিরভাগ বই এবং অনেক অনলাইন প্রবন্ধে এখনও যে সর্বশেষ তথ্য দেওয়া আছে, সেই অনুযায়ী ইথিওপিয়া থেকে পাওয়া প্রাচীনতম ফসিলের বয়স ধরলে, আন্দাজ ১ লক্ষ ৯৫ হাজার বছর আগে সেখানেই বর্তমান মানুষ, এই Homo Sapiens-এর যাত্রা শুরু হয়েছিল। তার আগে কি তাহলে আধুনিক মানুষ, এই হোমো সেপিয়েন্স ছিল না? দুম করে ইথিওপিয়ায় জন্মে গেল? পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় প্রত্নতাত্ত্বিক খোঁড়াখুঁড়ি যত বেশি হচ্ছে, আধুনিক মানুষের বয়স তত বেশি পিছিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন: আদালত অবমাননা আইন— ভারতীয় বিচারব্যবস্থা এবং দোষীসাব্যস্ত প্রশান্ত ভূষণ

বছর তিনেক আগের ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের একটা রিপোর্টে পড়েছিলাম, মরক্কোর জেবেল ইরহুদ-এর একটা খনি থেকে খোঁড়াখুঁড়ির সময় ১৯৬০-এর দশকে বেশ কিছু প্রস্তর যুগের যন্ত্র-অস্ত্র, আগুন জ্বালানোর চিহ্ন আর একটা খুলির অংশ পাওয়া গিয়েছিল— চোয়ালের একটা দিক, যাতে কয়েকটা দাঁতও ছিল আর ব্রেনকেস বা মগজাধার। মরক্কো আফ্রিকার উত্তর-পশ্চিম প্রান্তের একটা দেশ। এতদিন আফ্রিকার দক্ষিণ বা পূর্ব দিক থেকেই মানুষের নানা পূর্বপুরুষের ফসিল পাওয়া গেছে, মরক্কো যার থেকে বেশ খানিকটা দূরে। এবং, জেবেল ইরহুদ খুলির আনুমানিক বয়স দু’লক্ষ ৮০ হাজার বছর থেকে তিন লক্ষ বছর। সবচেয়ে আশ্চর্যের ব্যাপার, জেবেল ইরহুদ খুলির দাঁতের গঠন হোমো সেপিয়েন্সের দাঁতের গঠনের সঙ্গে অনেকটা মিলে যায়, অথচ দুটো খুলির বয়সের পার্থক্য প্রায় ৯০ হাজার বছর। তাহলে কি হোমো সেপিয়েন্সের বয়স আরও পুরনো? ওই রিপোর্টের তথ্য অনুযায়ী, প্রত্নতাত্ত্বিকরা এখনই জেবেল ইরহুদ-এর ‘মানুষ’-কে আধুনিক মানুষ হিসেবে মানতে রাজি নন। কারণ কতটা পিছিয়ে গেলে তবে হোমো সেপিয়েন্সের পূর্বপুরুষ বলা যাবে, আর কতটা আসলে হোমো সেপিয়েন্স— সেটা ঠিক করতে গেলে আরও ফসিল প্রমাণ প্রয়োজন।

তবে, এটা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যে, শুধুমাত্র একটা মহাদেশের একটা জায়গা, দক্ষিণ বা পূর্ব আফ্রিকা নয়, হয়ত পুরো আফ্রিকা জুড়েই বিভিন্ন সময় আধুনিক মানুষের নানা শাখার জন্ম হয়েছিল। বা কোনও একটা জায়গা থেকেই তারা বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে গিয়েছিল এবং এই ছড়িয়ে পড়ার যে সময়টা এতদিন বলা হয়েছে, তা হয়ত আরও পিছিয়ে যেতে পারে।

আরও পড়ুন: মুখোমুখি মৌ: সবাইকে গান শোনানোর তাগিদ আমার নেই (প্রথম পর্ব)

ঠিক যেভাবে ক্রমশ পিছিয়ে যাচ্ছে ‘সভ্য’ মানুষের যাত্রা শুরুর ইতিহাস। সভ্যতার সঙ্গে জুড়ে যদি সভ্য মানুষ বলতে এমন মানুষকেই ধরি যারা নদীর ধারে ছোট ছোট বসতি বানিয়ে থাকতে শুরু করেছিল, শিকারি-সংগ্রহকারী (hunter-gatherer) থেকে আস্তে আস্তে চাষাবাদ শুরু করেছিল, তাহলে সেই মানুষের বয়স এখনও ধরা হয় আনুমানিক আট থেকে ১০ হাজার বছর। মানে, ওই সময় নাগাদ, যখন শেষ হিমযুগ আস্তে আস্তে গুটিয়ে নিচ্ছে নিজেকে, পৃথিবী আস্তে আস্তে বরফের চাদর থেকে বেরিয়ে আসছে, আর মানুষও গুহা থেকে বেরিয়ে বাইরের সবুজ পৃথিবী জুড়ে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করছে, সেই সময়টা। সবই আনুমানিক, কারণ যা যা ফসিল বা কঙ্কাল আর বিভিন্ন যন্ত্র-অস্ত্র পাওয়া গেছে বিভিন্ন সময়ে, তার উপর ভিত্তি করেই এই সময়গুলো ভাগ করা হয়েছে। এই আট থেকে ১০ হাজার বছর আগে মানে তার আগের Paleolithic যুগ পেরিয়ে, Mesolithic যুগে ঢুকে মানুষ আস্তে আস্তে তার পরের Neolithic যুগের দিকে এগোচ্ছে— যে সময় থেকে পিতল, লোহা ইত্যাদি যুগ আস্তে আস্তে আসবে। সবই আনুমানিক সময়ের গল্প – মাটি খুঁড়ে আর গুহা থেকে পাওয়া বিভিন্ন প্রমাণের বয়স মেপে তৈরি করা সময়।

আরও পড়ুন: সাক্ষাৎকার: ‘প্রিয় বন্ধু আবার’ কনসার্টের আগে এক্সক্লুসিভ আড্ডায় অঞ্জন দত্ত

বহু বছর ধরে এটাই আমরা পড়েছি, শিখেছি যে, আট থেকে ১০ হাজার বছর আগের মানুষ কৃষিকাজ শুরু করছে, নদীর ধারে গ্রাম তৈরি করছে, ছোট ছোট পাথরের যন্ত্র-অস্ত্র বানাচ্ছে এবং এই তথ্য যে এখনও লেখা হচ্ছে, এই ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়ার জন্য একটু খোঁজাখুঁজি করতেই www.history.com ওয়েবসাইটের ২০১৯ সালের একটা প্রবন্ধে একটা অংশ পেলাম, যেটা হুবহু তুলে দিলে ঠিক এই কথাগুলোই বলছে: ‘During the Mesolithic period (about 10,000 B.C. to 8,000 B.C.), humans used small stone tools, now also polished and sometimes crafted with points and attached to antlers, bone or wood to serve as spears and arrows. They often lived nomadically in camps near rivers and other bodies of water. Agriculture was introduced during this time, which led to more permanent settlements in villages.’

আরও পড়ুন:  জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে ট্রেন্ডিংয়ে বাংলা গানের কনসার্ট! ফের নেতৃত্বে রূপম

এবার, এরেকটু এগিয়ে যাই। প্রথম ‘সভ্যতা’ কোনটা, কত বছর আগে শুরু হয়েছিল? বহু বই, অনলাইন প্রবন্ধে এখনও সুমেরিয় সভ্যতার নাম উঠে আসে— আনুমানিক ৩০০০ BCE (এখন আর খ্রিষ্ট-পূর্বাব্দ ব্যবহার করা হয় না, বলা হয় Before Common Era বা Before Current Era। হিসেব অবশ্য সেই একই সময় ধরেই করা হয়, সেখানে কোনও বদল ঘটানো হয়নি। ফলে, আলেকজান্ডারের মৃত্যু ৩২৩ BC বা BCE একই সময়কাল। আর ২০২০ AD-কে এখন বলা হবে ২০২০ CE.)। কিন্তু বেশ কিছু সাম্প্রতিক খোঁড়াখুঁড়ির ফলে একদিকে যেমন হরপ্পা-মহেঞ্জোদাড়োর নীচে আরও পুরনো সভ্যতার স্তর (আনুমানিক সাত থেকে আট হাজার BCE) পাওয়া গেছে, অন্যদিকে এখনও খুঁজে না পাওয়া এমন অনেক শহর, সভ্যতা হয়ত জলের নীচে ডুবে আছে জাপান, ভারত বা অন্যান্য দেশের বিভিন্ন জায়গায়— যেগুলো শেষ হিমযুগের বরফ গলার পরে জলের তলায় চলে গিয়েছিল। সেগুলোর বয়স কত, কেউ জানে না। এমনকী, গিজার পিরামিডের পাশের যে স্ফিংস-এর মূর্তি, যা পিরামিডের সমসাময়িক নয় বলে অনেকদিন ধরেই নানা তথ্য-প্রমাণ পাওয়ার কথা পড়েছি কয়েকটা প্রবন্ধে, সেই স্ফিংস-এর অবস্থান আকশের কিছু নক্ষত্রমণ্ডলের (Constellation) প্রায় ১২ হাজার বছর আগের অবস্থানের সঙ্গে মিলিয়ে দেখা গেছে যে তাদের মধ্যে অদ্ভুত মিল আছে। তবে, এগুলো বৈজ্ঞানিক রীতি মেনে প্রমাণ করতে এখনও হয়ত সময় লাগবে। তবে, সুমেরিয় সভ্যতার আগেও যে মানুষের সভ্যতা ছিল, সেই হিসেবও এবার পিছোচ্ছে।

আপডেট থাকুন। ফলো করুন আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ:

 

আর্কাইভ: প্রেরণা   ক্লিনিক   ব্লগ   বিজ্ঞান   লাইফস্টাইল   খেলা   ভ্রমণ   অ্যাঁ!   বিনোদন

ক্রমশ পিছোচ্ছে মানুষের ইতিহাস — রয় (প্রথম পর্ব) লিখলেন রয় (প্রাক্তন রেডিও জকি)

ক্রমশ পিছোচ্ছে মানুষের ইতিহাস— রয় (প্রথম পর্ব) বিবিধ

রয়

(প্রাক্তন রেডিও জকি)


এখনই শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *