হিটলারের জেলখানা এখন ‘অদ্ভুত’ হোটেল, এখানে অতিথিরাও যেন কয়েদি!

 

বিবিধ ডট ইন:- পৃথিবীর প্রতিটা দেশেই বিভিন্ন ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষ বহন করে একাধিক হোটেল। কিন্তু পূর্বের একটি জেলখানা-কে রূপান্তরিত করা হয়েছে হোটেলে? এমনটা শুনেছেন কখনও?

লাটভিয়ার ক্যারোসটা হোটেল, সাল ১৯০০, সাধারণ হাসপাতাল হিসেবে গড়ে ওঠে এই হোটেলটি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এই হাসপাতাল দখল করে হিটলার বাহিনী। লাটভিয়ার লাইপেজা শহরে অবস্থিত এই কারাগার বর্তমানে হোটেলে রূপান্তরিত হয়েছে। হিটলার বাহিনীর অমানবিক নির্যাতনের সাথে সাথে এই কারাগারে অধিকাংশ বন্দিকে গুলি করে হত্যা করা হত বলেও জনশ্রুতি শোনা যায়। জেলখানা থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত অনেক বন্দিই লিখে গেছেন ‘নরক থেকে মুক্তি’।

পরবর্তীতে এই কারাগারের ঐতিহাসিক মূল্যকে কাজে লাগিয়ে হোটেল কর্তৃপক্ষ এই কারাগারকে অভিনব হোটেলে রূপান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নেয়।

হোটেলের রুমগুলো তৈরি করা হয়েছে কারাগারের কক্ষের আদলে। প্রতিটি রুমে রয়েছে জেলখানার মতই লোহার খাট, ছোট্ট ড্রেসার আর টয়লেট,যার ফলে ঘরগুলো দেখে সত্যিকারের কারাগার মনে হলেও হতে পারে আচমকাই। এমনকি হোটেলের অতিথিদের সাথেও কারাগারের কয়েদীদের মতনই আচরণ করা হয়। শোনা যায় কোনও এক অজানা কারনে আজও মাঝেমধ্যেই বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এই হোটেল থেকে। স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে এই হোটেল অভিশপ্ত, আর হোটেলে রাত কাটানো আবাসিকদের অনেকেই দাবী করেছেন, হোটেল করিডোরে আজও অদৃশ্য আত্মার আনাগোনার শব্দ শোনা যায়, এমনকি শোনা যায় বন্দুকের আওয়াজ-ও।

লিখেছেন সায়ন্তন মন্ডল

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: