মথুরার বাঁকেবিহারী মন্দিরের ইতিহাসে প্রথমবার নিয়োগ মহিলা পুরোহিত, প্রতিবাদে আদালতের দ্বারস্থ পরিবার

 

বিবিধ ডট ইন: ৮০ বছর বয়সে ইতিহাস তৈরি করতে যাচ্ছিলেন মথুরার মায়া দেবী। মথুরার ইতিহাসে প্রথমবার, প্রায় ৪০০ বছর পুরনো মথুরার রাধারাণী মন্দিরে পুরোহিতের দায়িত্ব প্রেয়েছেন তিনি। যদিও প্রথমবারের মতো মন্দিরে পুজো করতে যাবার আগেই এলো বাধা, তাও তাঁর নিজের পরিবারের সদস্যদের থেকেই। মায়ার পুরোহিত হওয়ার বিরোধিতা করে আদালতের দ্বারস্থ হলেন তাঁর পরিবারের সদস্যরা।

মথুরা থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত বাঁকেবিহারী রাধারাণী মন্দির মথুরার দ্বিতীয় বিখ্যাত মন্দির। গত ৪০০ বছর ধরে এখানে পুজো করেছেন অনেক পুরুষ পুরোহিত। চলতি বছর মে মাসে মন্দিরের পুরোহিত নিয়োগ করা হয় মায়া দেবীকে। মায়ার স্বামী হরিবংশ লাল গোস্বামী ছিলেন রাধারানি মন্দিরের পুরোহিত। তাঁদের কোনও সন্তান না থাকায় হরিবংশের অবর্তমানে মন্দিরের পুরোহিত হিসাবে দায়িত্ব বর্তায় মায়া দেবীর উপর। কিন্তু তার পরই শুরু হয়েছে সমস্যা।

আসলে হরিবংশের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী মায়া দেবী। তাঁঅর পুরোহিত হওয়ার পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে তাঁর স্বামীর প্রথম পক্ষের স্ত্রীর পরিবারের সদস্যরা। তাঁদের দাবি প্রতারণা করছেন মায়া। অন্যদিকে মায়াদেবীর পক্ষ থেকে সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করা হয়েছে, তিনি এবং তাঁর স্বামী বিগত ৬০ বছর ধরে এই মন্দিরে পুজো করছেন। তাই পুরোহিত হওয়ার আসল দাবিদার তিনিই।

মায়ার আত্মীয় রাসবিহারী গোস্বামী এবং তাঁর অনুগামীরা মহিলা পুরোহিতের বিরুদ্ধে মন্দিরের বাইরে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। তাঁদের দাবি, ঠাকুর দর্শন, প্রসাদ বিতরণ থেকে মন্দিরের তহবিল গঠন- সব কিছুতেই একা সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন মায়া। যদিও সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি। এ নিয়ে মামলা দায়ের করা হয়েছে আদালতে।

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: