রোগী বসবাসের অনুপযুক্ত, পাভলভ হাসপাতালের দুরবস্থা নিয়ে সুপারকে চিঠি স্বাস্থ্য দফতরের

 

বিবিধ ডট ইন: চলতি বছরের এপ্রিল এবং মে মাসে পাভলভ হাসপাতাল পরিদর্শনে যান স্বাস্থ্য ভবনের মানসিক স্বাস্থ্য বিভাগের কর্তারা। তাঁদের চোখে ধরা পড়ে হাসপাতালের করুণ ছবি। পর্যবেক্ষণ রিপোর্টে উঠে এসেছে, হাসপাতালের অন্ধকার এবং স্যাঁতসেঁতে দু’টি মাত্র ঘরে ১৩ জন রোগীকে বন্ধ করে রাখা হয়েছে। ওই ঘরটির অবস্থাও বিপজ্জনক। হাসপাতালে খাবারের মান নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন পর্যবেক্ষকেরা।

অস্বাস্থ্যকর ঘরে রোগীদের বন্দি করে রাখা, খারাপ খাবার খেতে দেওয়া— এমন নানা অভিযোগ উঠল পাভলভ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। সেই তথ্য উঠে এল খোদ স্বাস্থ্য আধিকারিকদের রিপোর্টেই। এ নিয়ে ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি পাঠানো হল হাসপাতালের সুপার গণেশ প্রসাদকে।

এ প্রসঙ্গে মনোসমাজকর্মী রত্নাবলী রায় বলেন, ‘হাসপাতালের বাইরের সৌন্দর্যের তুলনায় ভিতরের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নজর দিলে এই অবস্থা হত না। রোগীদের ওই ধরনের বদ্ধ ঘরে রাখলে তাঁরা তো কোনও দিন সুস্থ হবেন না। কিন্তু আমার প্রশ্ন কেন ওই ১৩ জনকে এই অবস্থায় রাখা হয়েছে? এ তো কুঠুরিতে রাখার শামিল। ২০১৫ সালেই এই ধরনের ‘কাল কুঠুরি’ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘কেরল হাই কোর্টের এ বিষয়ে নির্দেশও রয়েছে যে, কোনও মানসিক রোগীকে ‘নির্জন কালকুঠুরি’তে রাখা যাবে না।’ রত্নাবলী প্রশ্ন তুলেছেন রোগী কল্যাণ সমিতির ভূমিকা নিয়েও।

স্বাস্থ্য কর্তাদের নজরে উঠে এসেছে, মানসিক অসুস্থদের জন্য কোনও নির্দিষ্ট ‘ডায়েট কমিটি’ নেই। অপরিষ্কার পাত্রে রোগীদের খাবার পরিবেশন করা হয়। রোগীদের দেখার জন্য যে নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা আছেন, তাঁরা নিজেদের দায়িত্ব পালন করেন না। এমনই সব অভিযোগে হাসপাতালের সুপারকে শোকজ করা হয়েছে। সূত্রের খবর, তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে, কী কারণে সরকারি মানসিক হাসপাতালের এমন খারাপ ছবি।

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: