আটঘণ্টায় একলক্ষ! জন্মদিনেই ছক্কা হাঁকাল ইমনের পুজোর গান ‘আয়গিরি নন্দিনী’

আটঘণ্টায় একলক্ষ! জন্মদিনেই ছক্কা হাঁকাল ইমনের পুজোর (Durga Puja ) গান ‘আয়গিরি নন্দিনী’ ( Aigiri Nandini )

বিবিধ ডট ইন: পুজো আসতে বাকি আর মাত্র কিছুদিন। ইতিমধ্যেই শহর কলকাতা পুজোর আমেজে মেতেছে। ঠিক সেসময়েই সঙ্গীতশিল্পী ইমন চক্রবর্তীর ( Iman Chakraborty ) নতুন উপহার ‘আয়গিরি নন্দিনী।’ ১৩ সেপ্টেম্বর ইমনের জন্মদিনের দিনই, ‘সারেগামা’র অডিও লেবেল থেকে তাদের ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রকাশিত হয়েছে গানটি। গানটির সুর এবং সঙ্গীতায়োজন করেছেন শিল্পী নীলাঞ্জন ঘোষ ( Nilanjn Ghosh) । এবং গানটি লিখেছেন সৈকত চট্টোপাধ্যায় ( Saikat Chattopadhyay ) । কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অজস্র সঙ্গীতপ্রেমী মানুষের মন জয় করে নিয়েছে গানটি। গানের মিউজিক ভিডিওতে পারফর্ম করেছেন ইমন নিজেই। সেটা মিউজিক ভিডিওটিকে অন্যমাত্রা এনে দিয়েছে।

জন্মদিনেই ছক্কা হাঁকাল ইমনের পুজোর গান 'আয়গিরি নন্দিনী'

গানটির প্রসঙ্গে বিবিধ ডট ইনকে ইমন তাঁর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। ইমন জানিয়েছেন, ‘পুজোর গান মানেই, বাঙালির কাছে একটা আবেগের দিক। সেইটা মাথায় রেখেই এই গানটা তৈরি হয়েছে। এই গানটা মায়ের আগমনীর গান, আবার উইমেন এমপাওয়ার্মেন্টের কথাও বলে। আমার জন্মদিনের দিন প্রকাশিত হলো কাজটা, গানটা সবাই ভালোবাসছেন। গানটার মধ্যে বাঙালিয়ানার বিষয়টা রয়েছে, সেটাও সবাইকে ছুঁয়েছে। প্রচুর শেয়ার হচ্ছে। এক ঘণ্টার মধ্যেই প্রায় দশ হাজার মানুষ শুনে ফেলেছেন গানটি। এটা আমার কাছে অনেক বড় পাওয়া।’

জন্মদিনেই ছক্কা হাঁকাল ইমনের পুজোর গান 'আয়গিরি নন্দিনী'
জন্মদিনেই ছক্কা হাঁকাল ইমনের পুজোর গান ‘আয়গিরি নন্দিনী’

মিউজিক ভিডিও প্রসঙ্গে ইমন আরও বলেন, ‘আজকের দিনের একজন আধুনিকা মহিলা, সে কীভাবে তাঁর জীবন বা পুজোটা দেখেন। সাজগোজও পুজোর একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সেই আধুনিকা পুজোয় কীরকম সাজতে ভালোবাসেন, সেদিকগুলো মাথায় রেখেই ভিডিওটা তৈরি হয়েছে।’

ইমনকে এর আগেও একটি মিউজিক ভিডিওয় পারফর্ম করতে দেখা গেছে। আয়গিরি নন্দিনীতেও ইমন দর্শকদের মন কেড়েছেন তাঁর পারফরম্যান্সে‌। এই বিষয়ে ইমন বললেন, ‘বলিউড বা হলিউডে শিল্পীরা কিন্তু নিজেদের গানে পারফর্ম করেন। মাইকেল জ্যাকসনকে পারফর্ম করতে দেখে এসেছি। আমি বড় শিল্পী নই তাঁদের মতোন। আমি অতি ক্ষুদ্র একজন শিল্পী। কিন্তু বরাবর নতুন কিছু করতে বরাবর চেষ্টা করি আর ভালোবাসি। মানুষের ভালো লাগলে সেটা বড় পাওয়া।’

ইমন আরও বলেন, ‘গানটির অ্যারেঞ্জমেন্টের জন্য নীলাঞ্জনের কৃতিত্ব অনেক। আমি শুধু আমার ভাবনাটা ওকে বলি তারপর পুরোটা তৈরি করেছে নীলাঞ্জন। সৈকত অসাধারণ লিখেছে। একবার লিরিক্সটা শুনেই আমাদের খুব পছন্দ হয়েছিল।’
গানটির প্রসঙ্গে নীলাঞ্জন ঘোষ বিবিধকে জানান, ‘এটা একটা চ্যালেঞ্জ ছিল। আয়গিরি নন্দিনী খুব পুরনো সৃষ্টি। অনেকদিন ধরে মানুষ শুনে আসছেন। সেই গানটা নিয়ে কাজ করা একটা চ্যালেঞ্জ তো বটেই। আয়গিরি নন্দিনীর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কিছু তৈরি করাটা একটা চ্যালেঞ্জ। সেটা করার চেষ্টা করতে গিয়েই যেটা হয়েছে।’ গানটির সুর করার সময় কী ভাবনা ছিল। সেই প্রসঙ্গে শিল্পী বলেন, ‘আমি কোনওদিনই কোনও সুরকে নিয়ে দিনের পর দিন পড়ে থাকতে পারি না। সেইসময় যেটা আসে, যেটা স্বতঃস্ফূর্ত সেভাবেই কাজ করি। ওই দশ মিনিটের মধ্যে হলে ভালো, নইলে ফেলে দিই সুরটা। বিশাল কিছু ভেবে তাই কাজ করা হয় না। তবে একটা বেসিক জিনিস তো ভাবা হয়, টেকনিক্যাল দিকগুলো। আয়গিরি নন্দিনী যেমন কোন রাগের ওপর রয়েছে। আসল গানটার কী সুর। সেইটা মাথায় রেখে বাকি অংশটা তৈরি করা। যাতে এমন মনে হয়, ওই অংশটা এলে আয়গিরি নন্দিনীর প্রয়োজন ছিল। এইটা ভাবতে ভাবতেই তৈরি করা। ব্যাঙ্গালোরে এক বন্ধুর বাড়ি ছুটি কাটাতে গেছিলাম। ওখানেই একটা পিয়ানোতে বসে ওই সুরটা তৈরি হয়েছিল।’

গানটি অনেকেই ভালোবাসছে, সেটা কেমন লাগছে সেই প্রসঙ্গে নীলাঞ্জন বলেন, ‘স্রষ্টা হিসেবে সেটা শুনে বা দেখে খুবই ভালো লাগছে। সময় যত গড়াবে তত বেশি মানুষ শুনবে। যদি পুজোর বিভিন্ন মণ্ডপে গানটি বাজানো হয়, তাহলে আরও ভালো লাগবে।’
পুজোর ঠিক আগে ইমন-নীলাঞ্জনের শারদ উপহার মন জয় করে নিয়েছে অনেকেরই। বিনোদন দুনিয়ায় রীতিমতো প্রশংসা কুড়োচ্ছে এই গান। মাত্র আটঘণ্টায় ১ লক্ষেরও বেশি মানুষ ইতিমধ্যে গানটি Saregama Bengali ইউটিউব চ্যানেলে দেখে ফেলেছেন। পুজোর আমেজ শহর জুড়ে। এমন সময়ে ‘আয়গিরি নন্দিনী’ আরও কত মানুষের মন জয় করে নেয়, এখন সেটাই দেখার।

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: