জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাঁতরে নদী পার হয়ে পরীক্ষা দিতে গেলেন অন্ধ্রপ্রদেশের তরুণী! ভাইরাল ভিডিও

 

বিবিধ ডট ইন: সত্যি-মিথ্যে জানা না থাকলেও কথিত আছে, মায়ের ডাকে সাঁতরে নদী পার হয়ে বাড়ি ফিরেছিলেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। ঠিক সেই গল্পেরই যেন পুনরাবৃত্তি ঘটলো অন্ধ্রপ্রদেশে। বর্ষায় ফুলে-ফেঁপে উঠেছে নদী, বইছে প্রবল জলোচ্ছ্বাস। অথচ এই নদী পেরিয়েই বোনকে পৌঁছে দিতে হবে পরীক্ষাকেন্দ্রে! এই অবস্থায় দুই দাদা সাঁতরে নদী পার করে দিলেন বোনকে, সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে সেই ভিডিও। যা দেখে এক কথায় হতবাক নেট দুনিয়া।

জানা যাচ্ছে, এই ঘটনা ঘটেছে অন্ধ্রপ্রদেশের ভিজিয়ানাগ্রাম জেলায়। বিশাখাপত্তনমের একটি বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত মারিভালাসা গ্রামের বাসিন্দা বছর একুশের তড্ডি কলাবতী দু’দিনের ছুটি পেয়ে এসেছিলেন গ্রামের বাড়িতে। তিনি হঠাৎ জানতে পারেন তাঁর পরীক্ষার দিন ঘোষণা হয়েছে। শনিবার সেই পরীক্ষা হওয়ায় শুক্রবার বিশাখাপত্তনামে ফেরার তোড়জোড় শুরু করেন। কিন্তু প্রবল বৃষ্টির জেরে গ্রামলাগোয়া চম্পাবতী নদী প্লাবিত হয়ে গ্রামে জল ঢুকে পড়ে। আর তার জেরে গ্রাম থেকে শহরে যাওয়ার পথ বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু পরীক্ষার কথা জানতে পেরেই দুই দাদা বিকল্প ব্যবস্থা নেয়।

যেহেতু অন্য কোনো উপায় ছিলনা, সেহেতু সাঁতরে নদী পার হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় তিন ভাই বোন। ভরা বর্ষাতেই উত্তাল নদী সাঁতরে পার হন কলাবতী ও তাঁর দুই দাদা। দুই দাদার দায়িত্ব ছিল বোনের সুরক্ষা করা। সম্প্রতি এই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোস্যাল মিডিয়ায়।

তিন ভাইবোনের এই কীর্তি দেখে চমকিত নেট দুনিয়া। তাঁদের সাহসিকতায় মুগ্ধ সকলেই। পরীক্ষা দেওয়ার জন্য বোন কে এভাবে সাহায্য করায় দুই দাদাকে কুর্নিশ জানাচ্ছে বিভিন্ন মহল।

দেশের একাধিক জায়গায় ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে বিভিন্ন ছবি সোস্যাল মিডিয়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। যেমন বেঙ্গালুরুর জলমগ্ন রাস্তায় দেখা গিয়েছে, আইটি কর্মীরা ট্রাকে চেপে যাচ্ছে অফিসে। নেট পাড়ায় এই ভিডিয়োগুলি ঘোরাফেরা করছে। আর তদ্দির এই দৃঢ়চেতনা দেখে জয় জয়কার করেছেন নেটিজেনরা।

হ্যালো! আপনার মতামত আমাদের কাছে মূল্যবান

%d bloggers like this: