নির্বাচনে বামেদের ভরাডুবি, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু নাট্যকারের

বিবিধ ডট ইন: ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ৭৭ টি আসন পেয়ে রাজ্যে প্রধান বিরোধী দলের আসন ধরে রেখেছিল বাম-কংগ্রেস জোট। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে সেই জোটে ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট যোগ দিয়ে সংযুক্ত মোর্চা হিসেবে বাম-কংগ্রেস-আইএসএফ জোট লড়াই করলেও এবারের নির্বাচন যে প্রধানত তৃনমূল বনাম বিজেপির লড়াই ছিল তা ভোটের ফল বেরানোর পর মানুষের রায়ে স্পষ্ট।

অভূতপূর্ব ভাবে মাত্র একটি আসনে জয়লাভ করেছে সংযুক্ত মোর্চা জোট, ভাঙড়ে জয়ী হয়েছেন আইএসএফ প্রার্থী নওসাদ সিদ্দিকি। একটি আসনেও জয়লাভ করতে পারেনি সিপিএম কিম্বা কংগ্রেস,এমনকি শতাধিক প্রার্থীর জামানত অবধি বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

বামেদের এই শোচনীয় বিপর্যয় অপ্রকাশিত পরাজয় বলে প্রেস কনফারেন্সে মন্তব্য করেন তৃনমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং।

এবার সিপিএম এর এহেন পরাজয়ে হতাশ হয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ব্যারাকপুরের বিশিষ্ট নাট্যকার সমীর বিশ্বাস।
সোমবার সেরিব্রাল স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তাঁর।

পরিবারের তরফে বলা হয়,

গণনার দিন বামেদের এই খারাপ ফলাফলের খবর পেয়েই বাড়িতে ফিরে আসেন তিনি এবং সেদিন রাতেই সেরিব্রাল স্ট্রোকে আক্রান্ত হন।

মৃত্যুর আগে সমীর বাবু ফেসবুকে এই পরাজয় নিয়ে লেখেন,

ফলাফল শূন্য হলেও বলতে পারবো না, ছাত্রযুবদের কর্ম সংস্থানে দাবীটা ভুল ছিল। ফলাফল যতই শূন্য হোক, বলতে পারবো না, আমফানের ঝড়ে, বৃদ্ধ বয়সে, দিন নেই রাত নেই, সুন্দরবনের কান্তিবাবুর বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে, বাঁধ সারানোর কাজ করাটা ভুল ছিল। বলতে পারবো না। ফলাফল যতই শূন্য হোক বলতে পারবো না, অতিমারির লকডাউনে দিনের পর দিন, নিরন্ন মানুষের মুখে, খাবার তুলে দেওয়া ভুল ছিল। আমি বলতে পারবো না। আমি বলতে পারবো না, সিঙ্গুর নন্দীগ্রামের জমি-আন্দোলনের পেছনে আন্তর্জাতিক চক্রান্তের কথা বলাটা ভুল ছিলো বলতে পারবো না।

তিনি আরও লেখেন,

প্রদীপ তা কমল গায়েনের নৃশংস হত্যাকাণ্ডে অপরাধীদের শাস্তি চাওয়া ভুল ছিল বলতে পারবো না। মানুষ যতই প্রত্যাখ্যান করুক আমি বলতে পারবো না দেশকে দেউলিয়া বানানোর কেন্দ্রীয় চক্রান্তের বিরুদ্ধে আন্দোলন করা ভুল ছিল। কৃষক মারা আইন বাতিলের, দাবী করাটা ভুল ছিলো আমি বলতে পারবো না। বরঞ্চ আমি বলবো, রুটি রুজির প্রশ্নে , ভ্রস্টাচার – অনাচারের বিরুদ্ধে, সবার হাতে কাজ সবার পেটে ভাতের দাবিতে, কিংবা দেশকে বেচে দেবার বিরুদ্ধে প্রতিটা লড়াই সংগ্রাম সংগঠিত করাই সঠিক কাজ।’

নীহারিকা নাট্যগোষ্ঠীর অন্যতম প্রাণপুরুষ ছিলেন সমীর বিশ্বাস। তাঁর বাবা, দাদা সহ পুরো পরিবারই বামপন্থী আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত বলেই জানা যাচ্ছে।

 

লিখেছেন সায়ন্তন মন্ডল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *