বালিশের পাশে থাকত ডাইরি, স্বপ্ন লিখে রাখতেন এই সাহিত্যিক!

এখনই শেয়ার করুন

বিবিধ ডট ইন: সাহিত্যিক, শিল্পী কিংবা অন্য পেশায় যুক্ত, সবকিছুর আগে আমাদের প্রাথমিক পরিচয় হল, আমরা মানুষ। আর এই একজায়গায়ই সাহিত্যিক শিল্পী নির্বিশেষে বিশ্বের প্রত্যেকের মধ্যেই একটা যোগসূত্র রয়েছে। আর মানুষমাত্রই বৈচিত্রের অধিকারী। অভ্যেসে বিচিত্র, আচরণে বিচিত্র, প্রতিক্রিয়ায় বিচিত্র। নইলে স্বপ্নে আমরা যা দেখি, তা লিখে রাখার প্রয়োজন বোধ করতে পারেন নাকি কেউ? অবাক হচ্ছেন? অথচ বিখ্যাত সাহিত্যিক গ্রাহাম গ্রিন এমনটাই করতেন। সৃজনশীল কাজে যুক্ত বলে? নাকি মানুষ বলেই এহেন বিচিত্র আচরণ? এই নিয়ে বিতর্ক থাকবে। তবে আসল কথা হল, গ্রিন স্বপ্ন লিখে রাখার মতো ‘উদ্ভট’ আচরণই করতেন। (বালিশের পাশে থাকত ডাইরি, স্বপ্ন লিখে রাখতেন এই সাহিত্যিক)

ঘুমিয়ে স্বপ্ন তো আমরা সবাই দেখি এবং তা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু স্বপ্ন লিখে রাখার কথা আমাদের মাথায় আসে কি? বোধহয় না। কিন্তু ঠিক এই কাজটিই করতেন ইংরেজ ঔপন্যাসিক, নাট্যকার তথা সাহিত্য সমালোচক গ্রাহাম গ্রিন। যে স্বপ্নই তিনি ঘুমিয়ে দেখুন না কেন, তা যাতে ভুলে না যান, তাই ঘুমানোর সময় মাথার কাছে একটি ছোট খাতা রাখতেন। আমরা যেখানে স্বপ্ন মনে রাখার প্রয়োজনই অনুভব করি না অধিকাংশ, অথবা পরদিন সকালে বেমালুম ভুলে যাই স্বপ্নকে, সেখানে তিনি মাঝরাতে ঘুম থেকে উঠে স্বপ্ন লিপিবদ্ধ করে করে একটি Dream Diary বানান।

সাবস্ক্রাইব করুন

আমার আপনার স্বপ্ন কি সিরিয়ালের মতো চলে? পাগলের প্রলাপ ভাবলেন তো? গ্রিন কিন্তু ভাবতেন এমনটাই। তিনি মনে করতেন, আমরা যে স্বপ্ন মাঝেমধ্যেই দেখি, সেগুলি কোনও নাটকের খন্ড খন্ড এপিসোড। স্বপ্নের আকারে যা রোজ রাতে দেখা যায়।

গ্রিনের এই কাহিনি শুনে অবাক হওয়াটাই স্বাভাবিক। কারণ আমাদের কাছে অদ্ভুত বা উদ্ভটের সংজ্ঞাটাই তো একটা সূত্রের মতো। আমাদের মতো নয় বা অধিকাংশ মানুষের আচরণের সঙ্গে যা বেমানান, তাকেই অবলীলায় আমরা ‘অদ্ভুত’ বা ‘উদ্ভট’-এর কাঠামোয় ফেলে দিই। সেদিক থেকে গ্রাহাম গ্রিন অদ্ভুতই বটে। কী বলেন!

বালিশের পাশে থাকত ডাইরি, স্বপ্ন লিখে রাখতেন এই সাহিত্যিক লিখলেন সপ্তপর্ণী সেন।


এখনই শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।